তথ্যচিত্র নির্মাণে ৫৭টি দেশের মধ্যে দ্বিতীয় বাংলাদেশের শারমিন

0
2

ওআইসি ইয়ুথ ফোরাম আয়োজিত ‘হ্যারিটেজ মিনিটস শর্ট ভিডিও কনটেস্ট’-এ ৫৭টি দেশের মধ্যে দ্বিতীয় স্থান অধিকার করেছেন বাংলাদেশের শারমিন চৌধুরী। ইতিহাস-ঐতিহ্যের উপর স্বল্পদৈর্ঘ্য তথ্যচিত্র ‘ডিয়ার মুজিজা’ নির্মাণ করার জন্য এ পুরষ্কার দেয় আন্তর্জাতিক এ সংস্থাটি।

বিশাল এ প্রাপ্তির বিষয়ে নির্মাতা শারমিন চৌধুরী জানান, বিশ্বের ৫৭টি দেশ থেকে ভিডিও জমা পড়ে। তার মধ্যে সেরা ৫-এ থাকার গৌরব অর্জন করেছে বাংলাদেশের দু’টি ভিডিও। আর তন্মধ্যেই ২য় অধিকার অর্জন করেছি আমার ‘ডিয়ার মুজিজা’।

শারমিন চৌধুরী বলেন, ইতিহাস-ঐতিহ্য আমাদের আগামীর পথ চলার পাথেয়। আগামীর প্রজন্মের সঙ্গে পূর্বপুরুষদের পরিচয় করিয়ে দেয়ার লক্ষ্যে সুলতানি আমলের অনন্য স্থাপত্যশৈলী বাগেরহাট ষাটগম্বুজ মসজিদের উপর তথ্যচিত্রটি নির্মাণ করা হয়। আমার ৬ মাসের মেয়েকে তথ্যচিত্রে কেন্দ্রীয়ভাবে উপস্থাপন করায় নাম দেয়া হয় ‘ডিয়ার মুজিজা’।

বিশ্বের এতগুলো দেশের ভেতরে ২য় স্থান অর্জনের অনুভূতি প্রকাশ করে শারমিন চৌধুরী বলেন, আমি সবসময় চেয়েছি আমার ইতিহাস ঐতিহ্যকে বিশ্বের সামনে তুলে ধরতে। তাই আমি নতুন প্রজন্মকে নিয়ে এসেছি আমার ঐতিহ্যের সাথে পরিচিত করিয়ে দেয়ার জন্য। যার ফলে আমি গল্পটাও সেভাবে সাজিয়েছিলাম। এবং মজার বিষয় হল কন্টেস্টের সম্মানিত জুরি বোর্ড আমার গল্প বলার ধরণ নিয়ে প্রশংসা করেছেন। কারণ এভাবে গল্প বলার ধরনে আর কোন কন্টেন্ট জমা পড়েনি বলেও তারা জানান।

জুরি বোর্ডে থাকা আয়োজক কমিটি টিআরটি ওয়ার্ল্ডের উপ-গবেষক এলিফ জেইম বলেন, ‘ডিয়ার মুজিজা’-এর পরিচালক তার কন্যাকে পরামর্শ দেয়ার মাধ্যমে প্রজন্মকে ঐতিহ্যের সঙ্গে ভালোভাবে সংযোগ করতে পেরেছেন। ৩ মিনিটের তথ্যচিত্রটি দর্শকের মন কেড়েছে।

চলমান মহামারির কারণে বিজয়ীদের নাম ঘোষণা করা হয় অনলাইনে। প্রতিযোগিতায় সেরা ৫ জন বিজয়ীকে পুরস্কার দেয়া হবে। প্রথম পুরস্কার হিসেবে দেয়া হবে ১ হাজার মার্কিন ডলার, দ্বিতীয় স্থান অধিকার করায় শারমিন চৌধুরীকে দেয়া হবে ৭৫০ মার্কিন ডলার। এর সাথে দেয়া হবে সার্টিফিকেট।


​সূত্রঃ তথ্যচিত্র নির্মাণে ৫৭টি দেশের মধ্যে দ্বিতীয় বাংলাদেশের শারমিন

Google search engine